আজ শনিবার। ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ। ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। ৯ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি। এখন সময় বিকাল ৩:১৪

বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাবি ফাইন্যান্স বিভাগের বর্ষবরণ

Finance
নিউজ টি শেয়ার করুন..

পুরোনো দিনের ব্যর্থতা, গ্লানি ঝেড়ে ফেলে নতুন উদ্যমে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় নিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ‘ফাইন্যান্স বিভাগ’ দিনভর বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ পালন করেছে।

রোববার সকাল থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা, ও সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে দিনটি বরণ করে নেয় বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) প্রশাসনের পাশাপাশি বিভিন্ন বিভাগ ও সাংস্কৃতিক সংগঠন বাংলার চিরায়িত ঐতিহ্যকে ধারন করে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

গত বছরগুলোর ন্যায় এবছরও ফাইন্যান্স বিভাগ তার ঐতিহ্যগত ধারা অবাহৃত রেখে বাংলার এই সংস্কৃতিকে জমকালো ভাবে পুরো বিভাগের শিক্ষক, কর্মচারী সকলে মিলে পালন করে।

সকাল সাড়ে ৯ টায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একাডেমিক ভবনের সামনে বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. রুস্তম আলী আহমেদ স্যারের নেতৃত্বে বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য শুভাযাত্রা বের করে। র‌্যালিতে বাঙালী ঐতিহ্যের ঢোক-ঢাল, ধুতি-পাঞ্জাবী, সহ বিভিন্ন নিদর্শন নিয়ে তারা ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বিভাগের সামনে এসে শেষ হয়।

শোভাযাত্রা শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের বুদ্ধিজীবী চত্বরে উন্মুক্ত মঞ্চে বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের পরিবেশনায় রবীন্দ্র সঙ্গীত, নজরুলগীতি, লোক সঙ্গীত, লালনগীতি, গম্ভীরা, নৃত্য ও আধুনিক গান পরিবেশ করা হয়। মধ্যাহ্নভোজের পর বেলা ৩ টা থেকে ৬ টা পর্যন্ত ঢাকার প্রখ্যাত ব্যান্ডদল ’ব্লাক’ ও ’প্রিজম’ -এর পরিবেশনায় আনন্দে মেতে উঠে পুরো ক্যাম্পাস।

বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সোহান জানান, সকলের অংশগ্রহন এবারের বর্ষবরণকে সত্যিই অসাধারণ করে তুলেছে। আমরা সকল শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা- কর্মচারী একই রকম পাঞ্চাবি পরে অনুষ্ঠানে আসি যা আমাদের একতা ও সম্প্রীতিকে প্রকাশ করে। এবং সবমিলে আশার চেয়ে অনেক ভালো একটি অনুষ্ঠান ছিল আমাদের।

বিভাগের বাইরেও সাধারণ দর্শকদের উপচে পড়া ভীড় ছিল চোখে পড়ার মতো।

আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক ও বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. রুস্তম আলী আহমেদ বলেন, বিভাগের সকল শিক্ষার্থী ও আমার সহকর্মীদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলেই আজ এতো বড় একটি অনুষ্ঠান সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে। পাশাপাশি মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. এম আব্দুস সোবহান,  উপ-উপাচার্য চৌধুরী মুহাম্মদ জাকারিয়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ ও বিজনেজ স্টাডিস অনুষদের ডীনের উপস্থিতি আনন্দের মাত্রাকে আরো বাড়িয়ে তোলে।

তিনি আরো বলেন, এরকম বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা পড়ালেখার পাশাপাশি নিজেদের আরো যোগ্য করে গড়ে তুলতে পারবে। এবং এর ধারা ভবিষ্যতে অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এম আর/রাবি


নিউজ টি শেয়ার করুন..

সর্বশেষ খবর

আরো খবর