আজ মঙ্গলবার। ১৬ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ। ৩রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। ৬ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি। এখন সময় সন্ধ্যা ৬:৫৪

প্রধানমন্ত্রীর আলটিমেটাম শেষ : পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে বেকায়দায় শোভন- রাব্বানী

প্রধানমন্ত্রীর আলটিমেটাম শেষ : পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে বেকায়দায় শোভন- রাব্বানী
নিউজ টি শেয়ার করুন..

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কমিটির মেয়াদ ১০ মাস পার হলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে পারেননি শোভন-রাব্বানী।গত বছরের ১১-১২ মে ছাত্রলীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের আড়াই মাস পর (৩১ জুলাই) সভাপতির পদে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক পদে গোলাম রাব্বানীর নাম ঘোষণা করা হয়। কিন্তু এখন অবধি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে পারেননি তারা।
জানা গেছে , ছাত্রলীগের অন্তর্কোন্দল এখন চরমে। যার কারনে করা যাচ্ছে না আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিও।


এর আগে গত ১৬ এপ্রিল ছাত্রলীগের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড ও পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
পরবর্তীতে তিনি আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ,জাহাঙ্গির কবির নানক,আব্দর রহমান এবং আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক কে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ও দায়িত্ব দেন পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে ।
সেই সাথে প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন কে সঙ্গে নিয়ে সমন্বয় করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৭ দিনের দিনের মধ্যে কমিটি করার আলটিমেটাম দিয়েছিলেন।
এরপর কমিটি গঠনে আওয়ামী লীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের দফায় দফায় বৈঠক।এদিকে শেখ হাসিনার দেয়া ৭ দিনের আলটিমেটাম শেষ হয়েছে সোমবার।কিন্তু কমিটি গঠনে এখনো কোনো অগ্রগতির খবর পাওয়া যায় নি।


জানা গেছে ,ডাকসু নির্বাচনের পর শোভন-রাব্বানীর মধ্যে বিরোধ আরও বাড়ে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের পণ্ডের নেপথ্যেও ছিল এই বিরোধ। আর এই বিরোধের কারনেই নাকি ছাত্রলীগের কমিটি বিলম্ভ হচ্ছে ।


এব্যাপারে দ্যা টাইমস অফ বাংলাদেশ কে আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বলেন, ছাত্রলীগ একটা বড় সংগঠন, বড় পরিবার। সুতরাং এখানে একটু মতানৈক্য, মতভেদ থাকতেই পারে। এটা অস্বাভাবিক কিছু না। তবে আমি মনে করি না সেটা সহনশীল পর্যায়ের বাইরে গেছে। তবে কোন্দল মিটিয়ে দ্রুত পুরো কমিটি গঠনের ব্যাপারে আশাবাদী দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা।


একটি সূত্রে জানা যায়, ৩০১ সদস্যের একটি কমিটি নিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর কাছে গিয়ে দু’বার ফেরত এসেছেন ছাত্রলীগের সভাপতি শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। তাদের জমা দেয়া কমিটির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর হাতে থাকা তালিকার বিশাল ফারাক থাকায় ফেরত আসতে হয়েছে বলে জানা গেছে।


এ সময় প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন এর সঙ্গে সমন্বয় করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেন তাদের।এতে বিপদে পড়েছেন ছাত্রলীগের চৌধুরী শোভন- রাব্বানী।

নিউজ টি শেয়ার করুন..

সর্বশেষ খবর

আরো খবর