আজ শনিবার। ২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ। ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। ১০ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি। এখন সময় রাত ৯:৫৩

মাত্র দু’জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী দিয়ে চলছে নোবিপ্রবি’র ভাষা শহীদ আব্দুস সালাম হল

মাত্র দু’জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী দিয়ে চলছে নোবিপ্রবি’র ভাষা শহীদ আব্দুস সালাম হল
নিউজ টি শেয়ার করুন..

নোবিপ্রবি প্রতিনিধি :

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের(নোবিপ্রবি) ভাষা শহীদ আব্দুস সালাম হল যেন ময়লা আবর্জনার ভাগাড়।দুই ব্লকের চারতলা বিশিষ্ট এই হলে পরিচ্ছন্নতা কর্মী মাত্র দু’জন। তার মধ্যে একজন শারীরিকভাবে অসুস্থ।

জানা যায়,দুই ব্লকের হলে মাত্র দু’জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী থাকায় প্রায়ই অপরিস্কার অবস্থায় দেখা যায় হলের টয়লেট,বেসিন,পানির ট্যাংক ও ডায়নিং।অনেকসময় হল জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে টয়লেটের নোংরা গন্ধ।তাছাড়া,অপরিস্কার অপরিচ্ছন্ন থাকায় হলের ডাইনিংয়ে বেড়েছে মাছির উৎপাত।হলের ডাইনিং ঘুরে দেখা যায় চারপাশে শুধু মাছি আর মাছি।প্রতি ব্লকের জন্য আলাদা ট্যাংক ব্যবস্থা থাকলেও তা নিয়মিত পরিস্কার করা হয় না। ট্যাংকের উপরে নেই ঢাকনা।শোধনের মাধ্যমে পানি সরবরাহ করা হলেও, সেই ট্যাংক গুলোর আশেপাশে দেখা যায় অত্যন্ত নোংরা পরিবেশ। সেখানে দেখা যায়, পচা-বাসী জিনিস পড়ে পোকামাকড় গিজগিজ করছে। পানির লাইন ফেটে পানিতে ভেসে আছে ট্যাংকের আশপাশ।

হলের আবাসিক শিক্ষার্থীদের অভিযোগ,পুরো হলটা যেন বস্তি।কতৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে আজ হলের এমন অবস্থা।হলের অনেক কর্মকর্তা কর্মচারী আছেন যারা নিয়মিত অফিস করেন না।

হলের কর্মচারীদের অভিযোগ, যেখানে পুরো হলে চারজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী দরকার সেখানে মাত্র দুইজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী আছে।তাদের মধ্যে আবার একজন শারীরিক ভাবে অসুস্থ। স্বল্প সংখ্যক জনবল দিয়ে পুরো হল পরিস্কার রাখা সম্ভব হয় না।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে হলের প্রভোস্ট (ভারপ্রাপ্ত) সোহেল রানা কালের কণ্ঠকে বলেন,মাত্র দু’জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী দিয়ে পুরো হল পরিস্কার রাখা সম্ভব না।শীঘ্রই আরো ২ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী নিয়োগ দেওয়া হবে। আশা করি সমস্যাগুলো খুব দ্রুতই সমাধান হয়ে যাবে।

নিউজ টি শেয়ার করুন..

সর্বশেষ খবর

আরো খবর