আজ শনিবার। ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ। ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। ১৬ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি। এখন সময় রাত ৪:৩২

মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে প্রান নাশের হুমকি ইবির খেলোয়ারদের

আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় বাস্কেটবলে ফাইনালে ইবি
নিউজ টি শেয়ার করুন..

ইবি সংবাদদাতা : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের হ্যান্ড বল খেলোয়ারদের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

আজ রোববার বিকেল ৪টায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠে তাদের সাথে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় হ্যান্ড বল টিমের সেমি ফাইনাল অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

সে অনুযায়ী ইবি টিম দুপুর ৩টার মধ্যেই মাঠে উপস্থিত হয়। তারা মাঠে অনুশীলন করতে থাকে। এসময় জাবির ২০-২৫ জন শিক্ষার্থীরা এসে কয়েকজন খেলোয়ারকে মাঠের এক পাশে ডেকে নিয়ে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে না খেলার জন্য হুমকি দেয় বলে নিশ্চিত করেছেন বেশ কয়েকজন খেলোয়ার ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়া বিভাগের প্রধান ড. মো: সোহেল।

খেলোয়ারদের ভাষ্যমতে, দুপুর ৩টায় মাঠে উপস্থিত হয়ে অনুশীলন শুরুর ১০ মিনিটের মধ্যেই বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী এসে আমাদের খেলতে নিষেধ করে চলে যায়। তবে আমরা অনুশীলন চালিয়ে যাই। এর মিনিট পাঁচেক পরে ২০-২৫জন এসে অধিনায়ক আশিক খান এবং বিকেএসপির খেলোয়ার ইমনের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। তারা বলে এখানে তোরা খেলতে পারবি না।

আর যদিও মাঠে নামিস তবে না খেলে দাড়িয়ে থাকবি। তখন আমাদের দায়িত্বে থাকা শাহ আলম কচি স্যারের সাথে কথা বলি। তিনি ঘটনাস্থলে এসে সংশ্লিষ্টদের জানালে খেলা স্থগিত করে। পরে আমরা জাবি থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় ওরাই আমাদের ধাওয়া করে। তবে কেউ আহত হয়নি। আমাদের যারা হেনস্থা করেছে তাদের সবাই ছাত্রলীগ কর্মী ও ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বলে শনাক্ত করতে পেরেছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়া বিভাগের প্রধান ড. মো: সোহেল বলেন, ঘটনা শুনে আমি উর্ধতন মহলকে অবহিত করেছি। আজকের খেলা স্থগিত করা হয়েছে ইতোমধ্যে। আর ভেন্যুও পরিবর্তনের বিষয়ে কথা চলছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুন উর রশিদ আসকারী বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা ছাড়াই বেশ কয়েকটি আন্ত বিশ্ববিদ্যালয় ইভেন্ট শেষ করেছি। অথচ আমাদের খেলোয়াররা বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে হেনস্থার শিকার হয়েছে। আর আজকের ঘটনাটি একেবারেই অনভিপ্রেত। আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ করব এবং এর প্রতিকার চাইব।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ সম ফিরোজ উল হাসান বলেন, তারা খেলা না করেই মাঠ ছেড়ে চলে গেছে। তবুও আমরা উদারতা দেখিয়ে বলেছি তারা যখন আমাদের সাথে খেলতে চায় তখনই আমরা খেলব। আমাদের কাছে কোন প্রকার অভিযোগ আসেনি। আর এখন যে অভিযোগ করা হচ্ছে সে বিষয়ে কোন প্রমাণ নাই।


নিউজ টি শেয়ার করুন..

সর্বশেষ খবর

আরো খবর