আজ শনিবার। ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ। ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। ১৬ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি। এখন সময় ভোর ৫:৫০

আপন দুই বোনকে গণধর্ষণ : বড় বোনের আত্মহত্যা

আপন দুই বোনকে গণধর্ষণ : বড় বোনের আত্মহত্যা
নিউজ টি শেয়ার করুন..

মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে উপজাতি এক স্কুলছাত্রী ও তার ছোট বোনকে ধর্ষণ করেছে প্রেমিক এবং তার তিন বন্ধু। এ ঘটনায় বাড়িতে ফিরে লজ্জা এবং ক্ষোভে আত্মহত্যা করেছে বড় বোন।

প্রথমে বিষয়টি অজানা থাকলেও ওই উপজাতি মেয়েটির মোবাইল ফোনে প্রতারক প্রেমিকের ছবি ও তাকে উদ্দেশ করে লেখা ‘বিশ্বাস ঘাতক’ আর ‘মৃত্যুর পর কবরে দু’মুঠো মাটি দেয়ার’ ক্ষুদে বার্তায় বেরিয়ে আসে আত্মহত্যার পেছনের গল্প।

প্রতিবেশী ছাত্রীরা জানায়, রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার ইমাদপুর পশ্চিমপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল ওই মেয়েটি।

রংপুর শহরের মাহিগঞ্জ এলাকার ঢোলভাঙা গ্রামের বুধুয়া মিনজির ছেলে রতন মিনজির সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে জানা গেছে। ১৮ এপ্রিল মোবাইল ফোনে দেখা করার কথা বলে তাকে ডাকে রতন। ওই দিন বিকেলে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী চাচাতো বোনকে সঙ্গে নিয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয় মেয়েটি।

পরবর্তীতে প্রেমিকের সঙ্গে দেখা গেলে সেখানে রতন ও তার বন্ধুরা মিলে একটি নির্জন স্থানে নিয়ে দুই বোনকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

পরদিন বিকেলে তারা বাড়ি ফেরে। তখন তারা অসুস্থ থাকলেও ঘটনাটি কাউকে জানায়নি। তারপর লজ্জা এবং ক্ষোভে আনুমানিক বিকেল ৫টার দিকে শয়নকক্ষে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে বড় বোন।

আত্মহত্যাকারী স্কুলছাত্রীর ছোট বোন জানায়, অনেক দিন ধরে রতন মোবাইল ফোনে তার দিদিকে বিরক্ত করত, প্রেমের প্রস্তাব দিত। কিন্তু দিদি তাতে রাজি হয়নি। পরে নানা কৌশলে প্রেমের ফাঁদে পড়ে যায়। এরপর থেকে তারা মোবাইলে নিয়মিত কথা বলত। রতনের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে হয়েছে সর্বনাশ।

মেয়ের মা সহ প্রতিবেশীরা জানান, এ ঘটনায় আইনের আশ্রয় নিলে ধর্ষণের শিকার অন্যজনকে মেরে ফেলার হুমকি দেয় তারা। এ ভয়ে এতদিন কেউ মুখ খোলেনি। ধর্ষণের মামলাও করেনি।

এদিকে ঘটনার পাঁচদিন পর আত্মহত্যাকারী ছাত্রীর ছোট বোন বাদী হয়ে কথিত প্রেমিক রতনসহ তিনজনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা করেছে।


নিউজ টি শেয়ার করুন..

সর্বশেষ খবর

আরো খবর