আজ বৃহস্পতিবার। ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ। ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। ৮ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি। এখন সময় রাত ১০:৫১

সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা না হলে স্বাধীনতা অর্থহীন : বি. চৌধুরী

সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা না হলে স্বাধীনতা অর্থহীন : বি. চৌধুরী
নিউজ টি শেয়ার করুন..

সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা না হলে স্বাধীনতা অর্থহীন। উন্নয়ন ও গণতন্ত্রকে পরষ্পর পরষ্পরের সাথি হিসাবে আখ্যায়িত করে যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, আর এই কারণেই গণতন্ত্রের স্বার্থে বিরোধী দলগুলোকে আস্থায় আনতে হবে। তাদের উপর আস্থা রাখতে হবে। বিরোধী দলকে আস্থায় নিতে না পরলে গণতন্ত্র আর উন্নয়ন প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে থাকবে। বিরোধী দলগুলেঅকে রাজনীতির করার সুযোগ দিতি হবে।

তিনি বিরোধী দলগুলোর উদ্দেশ্যে বলেন, তাদেরও উচিত হবে শুধু বিরোধীতার খাতিরে বিরোধীতা নয়। সরকার গঠনমূলক সমালোচনা করা, জনগনের অধিকার নিয়ে রাজনীতি করা। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার রাজনীতি করা।

শুক্রবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে যুক্তফ্রন্টের শরিক বাংলাদেশ জনদল আয়োজিত আলোচনা সভা ও গুনিজন সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, স্বাধীনতা স্বপ্ন ও চেতনা বাস্তবায়নের পধান ভাধা হচ্ছে দুর্নীতি, দু:শাসন ও প্রশাসনিক ব্যর্থতা। বাংলাদেশের উন্নয়নের সুফল এখনো এসকল কারণেই জনগন ভোগ করতে পারছে না। দুর্নীতির মতো মরণব্যাধির বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কঠোর ও দৃঢ় পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে। দুর্নীতির প্রশ্নে কোন আপোষ নাই।

তিনি অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া উপজেলা নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি না হওয়ার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, এভাবে চলতে পারে না। ভোটের প্রতি ভোটারদের আস্থা নষ্ট হয়ে গেলে গণতন্ত্র হুমকির মুখে পড়তে পারে। তিনি প্রশ্ন করেন ভোট কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি না হওয়ার জন্য দায়ি কারা ? কি সমস্যা ? এগুলো খুজে বের করে সমাধান করতে হবে।

জনদলের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জয় চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহন করেন বিকল্পধারার মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান এমপি, বিএলডিপি চেয়ারম্যান নাজিমউদ্দিন আল আজাদ, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, বিকল্পধারা প্রেসিডিয়াম সদস্য শাহ মাজহারুল হক চৌধুরী, লেবার পার্টি চেয়ারম্যান হামদুল্লাহ আল মেহেদী, মহাসচিব আবদুল্লাহ আল মামুন, সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের প্রধান সমন্বয়কারী আবু লাইছ মুন্না, জনদলের মহাসচিব সেলিম আহমেদ, সাংবাদিক সোনিয়া দেওয়ান প্রীতি প্রমুখ।

বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, উন্নয়ন ও গণতন্ত্র পাশাপাশি অবস্থান করতে হবে। গণতন্ত্র না থাকলে শুধু উন্নয়ন দিয়ে জনগনের মন জয় করা যায় না।

তিনি বলেন, নির্বাচনে বাংলাদেশের মানুষের আর আগ্রহ নেই-এ বিষয়টি চলমান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রে আশংকাজনকভাবে ভোটার উপস্থিতি হ্রাস পাওয়ার ঘটনায় প্রমানিত হয়েছে।

তিনি বলেন, ভোট কেন্দ্রে গিয়েও যখন জনগনের রায় প্রতিষ্ঠিত হয় না, তখন জনগন ক্রমান্বয়ে ভোট বিমুক হয়ে পড়ছে, যা স্বাধীনতার চেতনাকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে। জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণমূলক হলেও বিতর্কের উর্ধ্বে ছিল না। কিন্তু উপজেলা নির্বাচন তাও হচ্ছে না। সব রাজনৈতিক দল অংশ নিচ্ছে না। সরকারী দলের নেতারাই তাদের প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী। ভোটাররা ভোট দিতে যাচ্ছে না, কোনো ভোট দেয়ার প্রতি তাদের আগ্রহ নেই? ভোটাররা যদি ভোট না দেন রাষ্ট্র ও গণতন্ত্র হুমকির মুখে পড়বে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল নেতৃত্বের প্রতি গভীরতম শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা কোন একক দল বা একক ব্যাক্তির অবদান নয়। এখানে যার যতটুকু অবদান তাকে ততটুকু স্বীকৃতি দেয়া রাষ্ট্রের দায়িত্ব। কাউকে বাদ দিয়ে কাউকে প্রতিষ্ঠা ইতিহাস বিকৃতির চেষ্টা একটি জাতির জন্য কল্যাণকর নয়।

তিনি বলেন, আজ যখন স্বাধীনতার চেতনাকে ভূলুন্ঠিত করে ফের দেশকে গণতন্ত্রহীন করার ষড়যন্ত্র চলছে তখন সমগ্র জাতিকে স্বাধীনতার চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।


নিউজ টি শেয়ার করুন..

সর্বশেষ খবর

আরো খবর