আজ শনিবার। ২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ। ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। ১০ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি। এখন সময় রাত ১১:২৯

ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি পরিচয় দিয়ে টাকা লেনদেনের অডিও ফাঁস

শুক্র এবং শনিবারের মধ্যে প্রকাশিত হবে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি
নিউজ টি শেয়ার করুন..

সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠনে লেনদেনের অভিযোগ উঠেছে।সাতকানিয়া উপজেলা কমিটির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পাইয়ে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে টাকা দাবী করে।ইতিমধ্যে টাকা লেনদেনের বিষয়ের কথাগুলো অডিও রেকর্ড ভাইরাল হয়েছে।


এসব বিষয়ে জেলা-উপজেলার নেতা-কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক তোলপাড় ও আলোচনার পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ভাইরাল হয়েছে।আলোচিত সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয় মার্চের প্রথম দিকে। এ কমিটি নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে নানারকম আলোচনা শুরু হয়। এরপর কিছু দিনের মধ্যেই বাংলাদেশে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদ কমিটি বিলুপ্ত করেন।
এ কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে।জেলা-উপজেলা পর্যায়ের কিছু নেতাদের মধ্যে শুরু হয় মোটা অংকের টাকার লেনদেন।মোঃনোমান ও সাতকানিয়ার বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি আবদুল মান্নান ও মো. ইদ্রিসের অডিও রের্কড ফাঁস হয়ে যায়। উভয়ের কথোপকথনের এ অডিও বার্তাগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে শুরু হয় ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা।
জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মোঃনোমান ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরসহ কয়েকজন নেতাকে টাকা দেয়ার বিষয়সহ নানাবিধ কথা এসব কথোপকথনে উঠে আছে।কিন্তু জেলা ছাত্রলীগের একাধিক সূত্র জানান মোঃনোমান নামে জেলা ছাত্রলীগের কেউ নেই সে নিজেকে সহ-সভাপতি দাবী করেন।তারা আরো জানান সে জেলা সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরের বন্ধু।কিন্তু বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অনুমোদিত চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা ছাত্রলীগের ৫১বিশিষ্ট কমিটিতে নোমান নামে আদৌ কেউ নেই।
এইদিকে টাকা লেনদেনের বিষয়ে জানতে চাইলে দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম বোরহান উদ্দিনকে ফোন করা হলে তিনি বৈঠকে আছেন বলে ফোন কেটে দেন।ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ ইদ্রিসকে ফোন করা হলে তিনি প্রথমে বৈঠকে আছেন বললেও সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ার পর ফোন কেটে দিয়ে বন্ধ করে দেন। একইভাবে জেলার সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের ও নোমানকে একাধিকবার ফোন করেও রিসিভ করেননি।
স্থানীয় সূত্রে আরো জানা যায়, মান্নান সদ্য বিলুপ্ত সাতকানিয়া উপজেলা কমিটির সভাপতি। পৌরসভা ও কলেজ কমিটি গঠনের সময় সে-ই টাকা পয়সা লেনদেন করেছে জেলা ছাত্রলীগের সেক্রেটারি আবু তাহেরের পক্ষে। যা নোমান ও ইদ্রিসের অডিও ভয়েসে রয়েছে। তবে নোমানই সভাপতি বোরহান ও সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরের পক্ষে যাবতীয় অর্থ লেনদেন করেছে। এসব বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যেও ব্যাপক আলোচনা চলছে বলে জানা গেছে


নিউজ টি শেয়ার করুন..

সর্বশেষ খবর

আরো খবর