আজ রবিবার। ৩রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ। ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ। ২১শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি। এখন সময় সকাল ৬:৪৪

গুলশানে কে পাচ্ছেন আওয়ামী লীগের টিকিট?

গুলশানে কে পাচ্ছেন আওয়ামী লীগের টিকিট?
নিউজ টি শেয়ার করুন..

সদ্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেন পাঠানের (চিত্রনায়ক ফারুক) আসনে আগামী ১৭ জুলাই উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণের তারিখ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। আজ নির্বাচন কমিশন ভবনে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলম। গুলশান অঞ্চলের এই ঢাকা-১৭ আসনের নির্বাচনের তফসিলে আগামী ১৫ই জুন মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ আগামী সপ্তাহেই নির্বাচনের মনোনয়ন বাছাই করার প্রক্রিয়া শুরু করবে। কে পাচ্ছেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন- এ নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে চলছে জল্পনা-কল্পনা। কারণ বিএনপি অন্যান্য নির্বাচনগুলোর মতো এ নির্বাচনও যে বর্জন করবে- তা মোটামুটি নিশ্চিত।

গুলশান থেকে ২০১৮ সালের নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেছিলেন বিজেপি নেতা আন্দালিব রহমান পার্থ। তার এখানে নির্বাচন করার কথা শোনা গেলেও তিনি শেষ পর্যন্ত নির্বাচন করবেন না বলেই ধারণা করা হচ্ছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মাত্র ৬ মাস আগে এই নির্বাচন রাজনীতিক মাঠে তেমন গুরুত্বপূর্ণ না হলেও আওয়ামী লীগের অনেকেই এই নির্বাচনে প্রার্থী হতে আগ্রহী। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কে প্রার্থী হবে- সে সম্পর্কে কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি। তবে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতা এবং ব্যক্তি এই নির্বাচনে অংশগ্রহণের অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন।

সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সুত্র থেকে বলা হচ্ছে, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোহাম্মদ আরাফাত এই আসনে নির্বাচনে আগ্রহী। তিনি ইতিমধ্যেই একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন, দল যদি তাকে মনোনয়ন দেয়, তাহলে তিনি এখানে না বলতে পারবেন না। এর ফলে তার এখানে প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে বলে বিভিন্ন মহল মনে করেন। মোহাম্মদ আরাফাত আওয়ামী লীগে এখন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নেতা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন। তিনি মার্কিন ইস্যুতে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কথা বলছেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা নীতি নিয়েও তিনি আওয়ামী লীগের কর্ম-কৌশলের অন্যতম নীতি নির্ধারক বলে বিভিন্ন সূত্রগুলো জানিয়েছে। কিন্তু মোহাম্মদ আরাফাত শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন পাবেন কি না- সেটি নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

আওয়ামী লীগ ঘরানার অভিনয় শিল্পী ফেরদৌসও এই আসনে মনোনয়ন পেতে আগ্রহী। ফেরদৌসের সঙ্গে সরকারের ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। তবে তিনি শেষ পর্যন্ত গুলশান এলাকায় কেন মনোনয়ন পাবেন- এই নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে নানা রকম প্রশ্ন রয়েছে। তাছাড়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মাত্র ৬ মাস আগে এরকম একটি জায়গায় বাইরের কাউকে মনোনয়ন দিলে দলের মধ্যে কি ধরনের প্রতিক্রিয়া হবে সেটিও বিবেচনায় নিবে আওয়ামী লীগ। এছাড়াও, গুলশান এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা ওয়াকিল উদ্দিন এ নির্বাচনের জন্য আগ্রহী এবং তিনি মনোনয়ন চাবেন বলে জানা গেছে। তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা এবং দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধাও বটে।

রাজধানীর গুলশান, বনানী, ক্যান্টনমেন্ট ও ভাষানটেক থানার ১৫, ১৮, ১৯, ২০ ও ৯৫ নম্বর ওয়ার্ড এবং ক্যান্টনমেন্ট ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ঢাকা-১৭ আসন। এখন দেখার বিষয় এখানে স্থানীয় কাউকে মনোনয়ন দেওয়া হয়, নাকি আওয়ামী লীগ মনোনয়নের ক্ষেত্রে নতুন কোনো চমক দেখায়।


নিউজ টি শেয়ার করুন..

সর্বশেষ খবর

আরো খবর